Posts

সৌরজগতের গ্রহগুলোর চিত্রসহ বর্ণনা দাও।

সৌরজগতের গ্রহগুলোর চিত্রসহ বর্ণনা দাও। সৌরজগতের গ্রহগুলোর চিত্রসহ বর্ণনা দাও। সৌরজগতের গ্রহগুলোর চিত্রসহ বর্ণনা দাও।

কোষ বিভাজন কাকে বলে?

যে প্রক্রিয়ায় উদ্ভিদ ও প্রাণী কোষের কোষ বিভাজন ঘটে, সেই প্রক্রিয়াকে কোষ বিভাজন বলে। প্রতিটি জীবের দেহ কোষ দিয়ে গঠিত। এককোষী জীবগুলো কোষ বিভাজনের দ্বারা একটি থেকে দুটি, দুটি থেকে চারটি কোষে বিভক্ত হয় এবং এভাবে বংশবৃদ্ধি করে। বহুকোষী জীবের দেহকোষের সংখ্যা বৃদ্ধি হয়ে জীবদেহের সামগ্রিক বৃদ্ধি ঘটে। 

স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধস্ত বাংলাদেশ পূণর্গঠন প্রক্রিয়ার বর্ণনা দাও।

স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধস্ত বাংলাদেশ পূণর্গঠন প্রক্রিয়ার বর্ণনা  বাংলাদেশ যখন স্বাধীন হয়, তখন চারদিকে ছিল স্বজন হারানোর বেদনা, কান্না, হাহাকার আর ধ্বংসযজ্ঞ। অসংখ্য রাস্তাঘাট, পুল, কালভার্ট, কলকারখানা, নৌবন্দর ও সমুদ্রবন্দর ছিল বিধ্বস্ত। রাষ্ট্রীয় কোষাগার ছিল অর্থ শূন্য। স্বাধীন বাংলাদেশের ছিল না কোনো সামরিক - বেসামরিক বিমান। ত্রিশ লাখ শহিদের প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশে এক কোটি শরণার্থীর পুনর্বাসন, গ্রাম - গঞ্জের লাখ লাখ ক্ষতিগ্রস্থ বাড়িঘর পুননির্মাণ, সর্বোপরি সাড়ে সাত কোটি মানুষের অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা ও বাসস্থানের চাহিদা পূরণ ও আইনশৃঙ্খলা পুনঃপ্রতিষ্ঠা ছিল সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত দেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন বাংলাদেশ পুনর্গঠনের দায়িত্ব নিয়েই শুরু হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাসন আমল।যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনের মতো কঠিন দায়িত্ব পালন ছাড়াও ১৯৭২ - ১৯৭৫ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর শাসন আমলের উল্লেখযোগ্য অর্জনসমূহ নিম্নরূপ : নতুন সংবিধান প্রণয়ন ও কার্যকর করা ১৯৭২ সালের ১১ই জানুয়ারি রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অস্থায়ী সংবিধান আদেশ জারি করেন। ১০ই এপ্রিল গ

নবম শ্রেণির পদার্থবিজ্ঞান ১ম এ্যাসাইনমেন্টের সমাধান

প্রশ্ন ১। স্থির অবস্থান থেকে যাত্রা শুরু করে 600 kg ভরের একটি গাড়ি 0.2m/s 2  সুষম ত্বরণে 60 s চলার পর 400 kg ভরের একটি স্থির পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে আটকে একত্রে 7.2 m/s বেগে চলতে থাকে। ক. নিউটনের তৃতীয় সূত্রটি বিবৃত কর। খ. বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার সাথে সাথে থেমে যায় না কেন - ব্যাখ্যা কর। গ. প্রথম গাড়িতে প্রযুক্ত বলের মান নির্ণয় কর। ঘ. উদ্দীপকের ঘটনা ভরবেগের সংরক্ষণশীলতার সূত্র সমর্থন করে কি? গাণিতিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে মতামত দাও। সমাধান: ক. নিউটনের তৃতীয় সূত্রটি হলো- "প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে।" খ. বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার সাথে সাথে থেমে যায় না কারণ গতি জড়তার কারণে একটি গতিশীল বস্তু গতিশীলই থাকতে চায়। একটি বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার পর ফ্যানটি গতি জড়তার কারণেই সাথে সাথে থেমে যায় না। বরং কিছুক্ষণ ঘোরে ধীরে ধীরে থেমে যায়। গ. উদ্দীপক হতে, গাড়ির ভর, গাড়ির ভর, m 1  = 600 kg গাড়ির ত্বরণ, a = 0.2 m/s2 প্রথম গাড়িতে প্রযুক্ত বলের মান, F = ma = 600 × 0.2 = 120 N ঘ. উদ্দীপক হতে,  গাড়ির ভর, m 1  = 600 kg পিকআপ ভ্যানের ভর, m 2  = 400 kg মি

বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার সাথে সাথে থেমে যায় না কেন?

বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার সাথে সাথে থেমে যায় না কারণ গতি জড়তার কারণে একটি গতিশীল বস্তু গতিশীলই থাকতে চায়। একটি বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার পর ফ্যানটি গতি জড়তার কারণেই সাথে সাথে থেমে যায় না। বরং কিছুক্ষণ ঘোরে ধীরে ধীরে থেমে যায়।

নিউটনের তৃতীয় সূত্রটি লিখ।

বলের একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে প্রকৃতিতে বল জোড়ায় জোড়ায় ক্রিয়া করে। যখনই কোনো বস্তুর উপর একটি বল প্রযুক্ত হয়, তখনই একটি সমমানের এবং বিপরীতমুখী বল অন্য একটি বস্তুর উপর ক্রিয়া করে। এই বিষয়টিকে সাধারণত এভাবে বলা হয় - প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে। এটি নিউটনের গতির তৃতীয় সূত্র হিসেবে পরিচিত।

তাওহিদ বিশ্বাস করা প্রয়োজন কেন?

তাওহিদ শব্দের অর্থ একত্ববাদ। মহান আল্লাহকে এক ও অদ্বিতীয় সত্তা হিসেবে বিশ্বাস করার নামই হলো তাওহিদ। তাওহিদে বিশ্বাসের মাধ্যমেই মানুষ ইমান ও ইসলামে প্রবেশ করে। মানবজাতির হিদায়াতের জন্য দুনিয়াতে অনেক নবি-রাসুল আগমন করেছেন। তাঁরা সকলেই তাওহিদের দিকে মানুষকে আহবান করেছেন। তাঁদের সকলের দাওয়াতের মূল বাণী ছিল "লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু" অর্থাৎ 'আল্লাহ ছাড়া আর কোনো ইলাহ বা মাবুদ নেই।' এমন কোনো নবি ছিলেন না যিনি তাওহিদের কথা বলেন নি। বরং সকল নবি-রাসুলই তাওহিদের শিক্ষা প্রচার করেছেন। ইসলামের সকল বিধি বিধান তাওহিদের উপর প্রতিষ্ঠিত। তাওহিদের পরিপন্থী কোনো বিধান ইসলামে নেই। সালাত, যাকাত, সাওম, হজ - সকল ইবাদতই এক আল্লাহর জন্য করতে হয়। কোনো কিছু চাইতে হলেও এক আল্লাহর নিকট চাইতে হয়। এটাই ইসলামের শিক্ষা। অতএব, ইসলামে তাওহিদের গুরুত্ব অপরিসীম। তাওহিদে বিশ্বাস মানুষকে দুনিয়াতে ও আখিরাতে সফলতা এনে দেয়। কেননা তাওহিদ মানুষকে আল্লাহর পরিচয় দান করে। তাওহিদে বিশ্বাসীগণ শুধু আল্লাহ তায়ালার সামনে মাথা নত করে।  তাওহিদে বা আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাস মানুষকে এক জাতিত্ব বোধ এনে দেয়। ফলে মানুষ পরস্পর ভ্রা

আকাইদ কী?

আকাইদ শব্দটি বহুবচন। এর একবচন হলো আকিদাহ। আকিদাহ অর্থ বিশ্বাস। আর আকাইদ শব্দের অর্থ বিশ্বাসমালা। ইসলামের সর্বপ্রথম বিষয় হলো আকাইদ। ইসলামের মূল বিষয়গুলোর উপর মনে প্রাণে বিশ্বাস করাকেই আকাইদ বলা হয়। আকাইদের সবগুলো বিষয়ের উপর বিশ্বাস স্থাপন করলে মানুষ ইসলামে প্রবেশ করতে পারে।  তাওহিদ, রিসালাত, আখিরাত, আসমানি কিতাব, ফেরেশতা ইত্যাদির উপর বিশ্বাস স্থাপন করার নাম আকইদ।  যে এসব বিষয়ে বিশ্বাস করে, সে-ই ইসলামের প্রবেশকারী বা মুসলিম।

ভাইরাস উদ্ভিদের কোন কোন রোগ সৃষ্টি করে তা ব্যাখ্যা কর।

ভাইরাস উদ্ভিদের নিম্নোক্ত রোগসমূহ সৃষ্টি করে- তামাক গাছ - টোবাকো মোজেইক ভাইরাস আলু গাছ - পোটাটো মোজেইক ভাইরাস বিন গাছ - বিন মোজেইক ভাইরাস ফুলকপি গাছ - ফুলকপির মোজেইক ভাইরাস আরো পড়ুন এমিবিক আমাশয় কোন অনুজীবের কারণে হয়? ভাইরাসকে অকোষীয় জীব বলা হয় কেন? ছত্রাককে মৃতজীবী বলা হয় কেন? ব্যাক্টেরিয়ার অর্থনৈতিক গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর। ব্যাক্টেরিয়াকে আদি কোষী বলা হয় কেন? ভাইরাস উদ্ভিদের কোন কোন রোগ সৃষ্টি করে তা ব্যাখ্যা কর।

ব্যাক্টেরিয়াকে আদি কোষী বলা হয় কেন?

যেসব অণুজীবের কোষের কেন্দ্রিকা সুগঠিত নয় তারাই এ রাজ্যের সদস্য। সুগঠিত কেন্দ্রিকা না থাকায় এদের কোষকে আদিকোষ বলা হয়। যেহেতু ব্যাকটেরিয়া আদি নিউক্লিয়াসযুক্ত, অসবুজ, এককোষী অণুবীক্ষণিক জীব। বিজ্ঞানী অ্যান্টনি ফন লিউয়েন হুক সর্বপ্রথম ব্যাকটেরিয়া দেখতে পান। ব্যাকটেরিয়া কোষ গোলাকার, দণ্ডাকার, কমা আকার, প্যাঁচানো ইত্যাদি নানা ধরনের হতে পারে।  আরো পড়ুন এমিবিক আমাশয় কোন অনুজীবের কারণে হয়? ভাইরাসকে অকোষীয় জীব বলা হয় কেন? ছত্রাককে মৃতজীবী বলা হয় কেন? ব্যাক্টেরিয়ার অর্থনৈতিক গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর। ব্যাক্টেরিয়াকে আদি কোষী বলা হয় কেন? ভাইরাস উদ্ভিদের কোন কোন রোগ সৃষ্টি করে তা ব্যাখ্যা কর।

Popular posts from this blog

রুট স্টক ও সায়ন বলতে কী বুঝ?

বাংলাদেশের মানুষকে মাছে ভাতে বাঙালি বলা হয় কেন?

একটি সমাজ গঠন করতে কৃষি কিভাবে ভূমিকা পালন করে?

২টি সবুজ সারের নাম লিখ।

কিভাবে সেচের পানির অপচয় হয়?

ফলগাছের গোড়ায় এবং শাকসবজির ক্ষেতে কোন কোন পদ্ধতিতে সেচ দেওয়া হয়?

ছত্রাককে মৃতজীবী বলা হয় কেন?

তাওহিদ বিশ্বাস করা প্রয়োজন কেন?

বৈদ্যুতিক পাখার সুইচ বন্ধ করার সাথে সাথে থেমে যায় না কেন?

স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধস্ত বাংলাদেশ পূণর্গঠন প্রক্রিয়ার বর্ণনা দাও।